,

শ্রমিকের কাজ করতে গিয়ে পঙ্গু হলো ভার্সিটির ছাত্র!

ঝিনাইদহ সংবাদদাতা- 

বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া হত-দরিদ্র পরিবারের সন্তান মোঃ আশরাফুল ঈদ খরচের টাকা যোগাড় করার জন্য শ্রমিকের কাজ করতে গিয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় পঙ্গু হয়ে গেছেন। পা ভেঙ্গে তিনি এখন ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধিন রয়েছেন। পরিবারটি এতাটাই হতদরিদ্র যে টাকার অভাবে চিকিৎসা হচ্ছে না। এ সব কথা জানালেন তার দরিদ্র পিতা মোঃ ছানোয়ার হোসেন। হরিণাকুন্ডু উপজেলার জোড়াপুকুরিয়া গ্রামের মেধাবী ছাত্র আশরাফুল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে সন্মান ৩য় বর্ষে ইংরেজিতে পড়াশুনা করেন। টিউশনি এমনকি মাঝে মধ্যে শ্রমিকের কাজ করে একদিকে পড়াশুনা অপর দিকে সংসারে দরিদ্র পিতাকে সাহায্য করছিলেন।

গত ২৭ আগষ্ট ঈদুল আযহার ছুটিতে আশরাফুল বাড়ীতে আসেন। ভেবেছিল ছুটির কয়দিন কাজ করে ৬/৭ হাজার টাকা হবে। কিছু ইদের ও পড়ার খরচ যোগাড় করার জন্য পরদিন ২৮ আগষ্ট সকালে সে রাজ মিস্ত্রির সাথে ট্রলিতে দৈনিক ৫০০ টাকা মুজুরিতে ঢালাই কাজে কুষ্টিয়ার হরিনারায়নপুর যাচ্ছিল। পথিমধ্যে কুষ্টিয়ার বাগচড়া নামক স্থানে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে ট্রলি গাছের সাথে ধাক্কা খেয়ে খাদের মধ্যে পড়ে যায়। সড়ক দুর্ঘটনায় আশরাফুলের বাম পা ভেঙ্গে যায়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আশরাফুলের পিতার আগে চায়ের দোকান ছিল। তাই দিয়ে কোন রকমে সংসার চলতো। পিতা ছানোয়ার হোসেন বৃদ্ধ হওয়ায় এখন কিছুই করতে পারেন না।

ডাক্তার বলেছেন, হাড় টুকরো টুকরো হয়ে যাওয়ায় অপারেশন করতে হবে। সবকিছু মিলে প্রায় এক লাখ টাকা দরকার। এই টাকা যোগাড় করে চিকিৎসা করানোর মত কোন অবস্থা নেই আশরাফুলের পরিবারের। কোন হৃদয়বান ব্যক্তি যদি সাহায্যের হাত বাড়ান তবেই মেধাবী ছাত্র আশরাফুল পঙ্গুত্বের অভিশাপ থেকে মুক্তি পেয়ে লেখাপড়া শেষ করতে পারবে। আর্থিক সহায়তার জন্য বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক হরিণাকুন্ডু শাখা সঞ্চয় হিসাব নং ৪৪১৭ অথবা বিকাশ নং ০১৭১৯২৬৭৪১০ নাম্বারে দানশীল ব্যক্তিরা টাকা পাঠাতে পারেন।

মতামত.........