20160721_161513আবদুল আউয়াল জনি, সংবাদ সবসময় :

চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় জায়গা-জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে মিথ্যা মামলায় পুলিশ দিয়ে শিক্ষককে আটকের পর বাড়িতে হামলা ভাংচুর ও লুটপাট চালিয়েছে প্রতিপক্ষরা উক্ত ঘটনায় আহত হয়েছে ৩ মহিলা।

ঘটনার বিবরণে জানা যায় আমিরাবাদ জনকল্যাণ উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক লোহাগাড়া কালোয়ার পাড়ার মৃত মফিজুর রহমানের পুত্র মোহাম্মদ ইউনুচ এর পরিবারের সাথে তার চাচা মৃত আবদুর রশিদের পুত্র মাওলানা ওবাইদুল্লাহর পরিবারের সাথে দীর্ঘদিন যাবৎ জায়গা-জমি সংক্রান্ত বিরোধ ছিল,  এলাকার চেয়ারম্যান ও গন্যমান্য ব্যাক্তিরা বার বার চেষ্টা করেও বিরোধের মিটমাট করতে সক্ষম হয়নী, ফলে লেগেই ছিল বিরোধ,  সেই বিরোধের সুত্র ধরে ২০শে জুলাই শিক্ষক মোহাম্মদ ইউনুচ ও তার বড়ভাই আতাউর রহমানকে আসামী করে চাঁদাবাজী, চুরির মিথ্যা মামলা করে চাচা মাওলানা ওবাইদুল্লাহ এবং রাত আনুমানিক ১টার সময় তাদের আটক করে লোহাগাড়া থানা পুলিশ।20160721_155617

মিথ্যা মামলায় শিক্ষক মোহাম্মদ ইউনুচ ও তার বড়ভাই আতাউর রহমানকে পুলিশের মাধ্যমে আটকের পর ২১শে জুলাই সকাল আনুমানিক ৯টার সময় মাওলানা ওবাইদুল্লাহ, ওবাইদুল্লাহর ছেলে আবদুল হামিদ ও স্থানীয় মৃত আবদুল আলীমের পুত্র ফারুক সহ ১৫/২০ জনের দলবল নিয়ে শিক্ষক মোহাম্মদ ইউনুচ এর বাড়িতে অতর্কিত ভাবে ভাংচুর, লুটপাট চালায়, ভেঙ্গে ফেলা হয় বাড়ির দরজা, আসবাবপত্র ও বাড়ির বাউন্ডারি, লুট করে নিয়ে যাওয়া হয় স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকা সহ প্রায় ১৫ লক্ষ টাকার সম্পদ , রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করা হয় আতাউর রহমান এর স্ত্রী জাহানারা বেগম (৪৫), ইউনুচ এর স্ত্রী মন্জু আরা বেগম (৪০) ও আহমদুর রহমানের স্ত্রী জাহানারা বেগম (৩৫) কে।20160721_140359

আহত অবস্থায় আতাউর রহমানের স্ত্রী জাহানারা বেগম (৪৫) ও আহমদুর রহমানের স্ত্রী জাহানারা বেগম (৩৫),কে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে এবং শিক্ষক মোহাম্মদ ইউনুচ এর স্ত্রী মঞ্জু আরা বেগমকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেওয়া হয়।20160721_140425

লোহাগাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাক্তার মোহাম্মদ হানিফ সংবাদ সবসময়কে জানান আহতদের কোমরে, হাটুতে, পায়ে আঘাত রয়েছে।

জনকল্যাণ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদু ছালাম সংবাদ সবসময়কে বলেন শিক্ষক মোহাম্মদ ইউনুচকে পুর্ব পরিকল্পিত ভাবে চাঁদাবাজি ও চুরির মামলায় ফাসিয়ে আটক করা হয়েছে অথচ মামলায় যেদিনের ঘটনার কথা বলা হয়েছে সেদিন শিক্ষক মোহাম্মদ ইউনুচ সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত বিদ্যালয়ে উপস্থিত ছিল এবং ৩ নাম্বার রুমে শিক্ষার্থীদের পরিক্ষা নেওয়ার দায়িত্বে ছিলেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই লিটন চন্দ্র সিংহ বলেন নিদ্দিষ্ট মামলার তদন্তে স্বার্থে শিক্ষক মোহাম্মদ ইউনুচ ও তার বড়ভাই আতাউর রহমানকে আটক করা হয়েছে।

শিক্ষককে কেন চাঁদাবাজ বানিয়ে আটক করা হল এবং তার বাড়িতে কেন হামলা ও লুটপাট করা হল ? জানতে চাইলে লোহাগাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ শাহজাহান পিপিএম সংবাদ সবসময়কে বলেন মাওলানা ওবাইদুল্লাহ মামলা করায় তদন্তের স্বার্থে শিক্ষক মোহাম্মদ ইউনুচ ও আতাউর রহমানকে আটক করা হয়, তারা যদি নির্দোষ হয়ে থাকে তাহলে তাদের কোনপ্রকার হয়রানী করা হবেনা। শিক্ষক মোহাম্মদ ইউনুচের বাড়িতে হামলা ও লুটপাটের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন এখনও পর্যন্ত লিখিত কোন অভিযোগ পাইনি পেলে তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যাবস্থা প্রহন করা হবে

শিক্ষককে আটকের পর, বাড়িতে হামলা ভাংচুর ও লুটপাট আহত ৩

মতামত.........