,

মাধবদী বাজারে ফের ৩ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে নতুন কৌশলে চুরি

প্রশাসন নিরব নির্বিকার, চোর আতঙ্কে ব্যবসায়ীরা…

মোঃ আল আমিন, মাধবদী (নরসিংদী) সংবাদদাতা:

ফের মাধবদী বাজারের প্রধান গলির ৩টি কাপড় ও সুতার গদিতে নতুন কৌশলে এক রাতে দুর্ধর্ষ চুরি সংগঠিত হয়ছে। নৈশ প্রহরিরা ছিল কোথায়? এ প্রশ্ন এখন মাধবদী বাজারের সাধারণ ব্যবসায়ীদের।

ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল ৩০অক্টোবর সোমবার দিবাগত গভীর রাতে মাধবদী পৌর শহরের বড় মসজিদ রোডের চাউল পট্রির গলিতে।

গত ৩অক্টোবর মাধবদী বাজারের প্রধান গলি বড় মসজিদ রোডের মাদ্রাসা মার্কেটে এক রাতেই দু’টি মোবাইলের দোকানে সংঘবদ্ধ একদল চোর অভিনব কায়দায় দোকানের তালা না ভেঙ্গে ৫৭ পিস ও ৬২ পিস স্মার্টফোন যার মূল্য প্রায় ২৫ লক্ষ টাকার স্মার্টফোন চুরি করে নিয়ে যায়। এ ঘটনার ১ মাস না পেরোতেই ফের গতকাল সোমবার গভীর রাতে মাধবদী বাজারের প্রধান গলি চাউল পট্রির দু’টি কাপড়ের গদি আল আমিন হকের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হক টেক্সটাইল ও একই গলিতে আজিজুর রহমানের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আজিজ টেক্সটাইলের কাপড়ের গদিতে এবং বাজারের অন্য একটি গলিতে সিয়াম টেক্সটাইলের সুতার গদির দোকানের তালা না ভেঙ্গে অভিনব কায়দায় সাটার না ভেঙ্গে ফাঁকা করে চোরের দল প্রবেশ করে ক্যাশ বাক্সের তালা খুলে নগদ টাকা সহ ব্যাংকের চেক বই ও জরুরী কাগজ পত্র চুরি করে নেয় চোরের দল।

হক টেক্সটাইলের মালিক আল আমিন হক জানান, আমার ব্যবসা বেশী চেকের মাধ্যমে হয় তাই দোকানে বেশী টাকা ছিলো না ২০/২৫ হাজার টাকা ও চেক বই চুরি করে নিয়ে নিয়েছে। সকালে এসে এ ঘটনা দেখে আমি ব্যাংকে জানিয়েছি যেন ব্যাংক থেকে আমার কোন চেক পাশ না করান।

এদিকে আজিজ টেক্সটাইলের মালিক আজিজুর রহমান বলেন, আমাদের ব্যবসা কাপড়ের সাধারণত আমরা চেকেই বেশী লেনদেন করে থাকি তারপরও দোকান খরচ ও কর্মচারীদের জন্য খরচের জন্য প্রায় ১৫/২০ হাজার টাকা ছিল তা নিয়ে নিয়েছে। তবে চোরদলের আশা ছিল আরো বেশী টাকার তারা বেশী টাকা না পেয়ে ক্ষোভে দোকানের সমস্থ মালামাল তচনছ করে সারা ঘরে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ফেলে গেছে।

সিয়াম টেক্সটাইলের সুতার গদি থেকে একই কায়দায় চোর দল ৯৫ হাজার টাকা নিয়ে গেছে বলে নিশ্চিত করেছেন মাধবদী থানার এস আই উত্তম।

এ দিকে একই রাতে মাধবদী বাজারের সোনার বাংলা মার্কেটের দু’টি দোকেনে ও গরুহাটের পাশে আরো দু’টি দোকেনে চুরি হয়েছে বলেও একটি সুত্র জানিয়েছে।

মাধবদী শহরের প্রধান ব্যস্ততম সড়ক হচ্ছে বড় মসজিদ রোড। রোডটির দুই পাশের দোকানপাট রয়েছে, পাহাড়ার জন্য মাধবদী বাজার মার্চেন্ট এসোসিয়েশনের অধীনস্থ নৈশ প্রহরী রয়েছে। তাদের চোখকে ফাঁকি দিয়ে এ দুর্ধর্ষ চুরির ঘটনা অনাকাঙ্খিত এবং এছাড়া থানা পুলিশও এ রাস্তায় রাতভর টহল দিতে দেখা যায়। নিরাপত্তাকর্মীদের দায়িত্বহীনতাই এসব ঘটনার জন্য দায়ী বলে মন্তব্য করেছেন মাধবদী বাজারের সাধারণ ব্যবসায়ীরা।

মতামত.........