,

মাধবদীতে স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসা নেই, প্রাইভেট হাসপাতাল গুলো ব্যাস্থ পকেট কাটায়

Iccddrb1431004541মোঃ আল আমিন, মাধবদী (নরসিংদী) সংবাদদাতা :

মাধবদীতে স্বাস্থ্য সেবা নাজুক অবস্থা বিরাজ করছে। বর্ষা মৌসুমে প্রচন্ড গরম আর থেমে থেমে বৃষ্টি হওয়ার কারনে সাধারণ মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে নানা রোগ ব্যধিতে। সরকারী উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র গুলিতে জনবল সঙ্কট, ঔষধ স্বল্পতা, নিয়োগকৃত চিকিৎসকদের অধিকাংশ সময় অনুপস্থিত থাকার কারনে মাধবদীসহ নিম্নাঞ্চলের গরীব অসহায় মানুষজন স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত দীর্ঘদিন।

এ সুযোগে প্রাইভেট ব্যাক্তি মালিকানাধীন ক্লিনিক বা হাসপাতাল গুলো নিম্নমানের সেবা দিয়ে সাধারণ রোগীদের পকেট কাটায় ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। জানাযায় পক্ষকাল যাবৎ মাধবদীর বিভিন্ন এলাকায় বিশেষ করে পূর্বাঞ্চলীয় নিম্ন এলাকায় ঠান্ডা জনিত রোগের সাথে বৃদ্ধ ও শিশুদের পেটের পীড়ায় আক্রান্তর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এসব রোগী ও তাদের অভিবাবকরা স্থানীয় ভাবে স্বাস্থ্যসেবা না পেয়ে বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতালে ভীড় করছে।

এসব প্রাইভেট হাসপাতাল গুলোতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কোন নিয়ম নীতি মানা হয়না এবং প্রায় প্রতিটি হাসপাতালে পরিবেশ অত্যন্ত নোংরা এবং আবর্জনাপূর্ণ দুর্গন্ধ যুক্ত। যাতে শ্বাস কষ্ট, নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত রোগী সুস্থ হয়ে উঠার পরিবর্তে আরো অধিক রোগে আক্রন্ত হতে দেখা যায়।

এ ব্যাপারে জেলা সিভিল সার্জন অফিসে কথা বলার সময় একজন জানান নিবন্ধিত সকল প্রাইভেট হাসপাতাল ও ডায়াগনেস্টিক ক্লিনিক গুলোকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন, দক্ষ অপারেটর এবং অভিজ্ঞ চিকিৎসক দ্বারা চিকিৎসাসেবা দেয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার তাগিদ দেয়া হয় কিন্তু তারা ব্যবসায়ীক দিকটি যত কঠোর ভাবে দেখেন রোগীদের স্বাস্থ্য সেবায় ততটা মনোযোগী নন। মাঝে মাঝে ভ্রাম্যমান আদালত জরিমানা করলেও হাসপাতালের মেঝে, বেড, সিঁড়ি, ইমারজেন্সি কক্ষ দেখলে মনে হয়না তাদেরকে সর্তক করার জন্য কোন প্রকার জরিমানা করা হয়েছে। অর্থাৎ আগে যা ছিল মোবাইল কোর্টের অভিযানের পর তাই রয়েছে। এ ক্ষেত্রে শুধু রোগীর চিকিৎসার ব্যায় বাড়ে। ফলে সঠিক চিকিৎসার অভাবে নিম্ন আয়ের সাধারণ মানুষ অসুস্থ্য, দূর্বল শরীর নিয়ে রাষ্ট্র, সমাজ আর নিয়তিকে দোষারোপ করে ধুঁকে ধুঁকে নিঃস্বেশ হতে চলেছে।

সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ের ত্বরিত তদারকি এবং প্রাইভেট হাসপাতাল গুলোর ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া খুবই জরুরী হয়ে পড়েছে।

মতামত.........