মুহাম্মদ মিজান বিন তাহের, বাঁশখালী( চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি:

বাঁশখালীতে ছুরিকাঘাত করে  পৌরসভা  যুবলীগের সভাপতি কে হত্যা করা হয়েছে। গতকাল ০১ ডিসেম্বর  ২০১৭ ইং বুধবার রাত ১০ টার সময়  মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে পৌর সভার উত্তর জলদী মনিক পাড় এলাকার রামদাশ্যা পুকুর পাড় দোকানের পূর্ব পার্শে   ছুরিকাঘাত করে তাকে হত্যা করে  ।সে বাঁশখালী পৌরসভা  ৪ নং ওয়ার্ডের উত্তর জলদী এলাকার স্হানীয় নজির আহমদের পুত্র  দিদারুল মোস্তফা দিদার ( ৩৫) । সে দীর্ঘ দিন যাবৎ বাঁশখালী পৌরসভা ৪ নং ওয়ার্ডের  আওয়ামী যুবলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

নিহত দিদারের আপন চাচাত ভাই মিজান  জানান, কিছুদিন আগে আব্দুল আউয়াল প্রকাশ (ইদ্দিয়া) নামে স্হানীয়  দিদারুল আলমের কথা কাটাকাটি হয়। পরে তা মীমাংসা করলেও প্রতিহিংসার বশীভূত হয়ে দিদারুল মোস্তফা কে হত্যা করে। গতকাল আমি এবং আমার বড় ভাই দুইজনই একসাথে বসে রাতে ভাত খাচ্ছি টিক সেই মুহুর্তে তাকে ফোন দেওয়া হয়। তখন আমি ভাত খেয়ে উঠার আগে সে ভাত খেয়ে উঠে। আমি থাকে বল্লাম হড়ে যর,তখন সে আবার বল্ল”দোয়ানত যাইর দি” তুই ভাত হায় আয় আই আস্তে আস্তে আড়ি” তখন আমি ও ভাত খেঢে হাত ধূয়ে উঠে দোকানের উদ্দ্যেশে রওনা হই,তার মধ্যে আমাকে আমার একটা বন্ধবীর ফোন আসলে আমি আস্তে আস্তে কথা বলতে বলতে যায়,তার মধ্যে আমি মাহমুদ্দ্যা বর ঘাটা পার হলে আমার ভাইয়ের চিৎকার শুনি, সে আমার নাম ধরে বলে “মিজান আরে মারি পেলার আরে বাঁচা” তখন আমি দৌড়ে গিয়ে দেখি তার পুরো শরীরে রক্ত। তাকে ছুরিকাঘাত করে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।সে তখন আমাকে বলে আমাকে আব্দুল আউয়াল জনি প্রকাশ (ইদ্দিয়া) চুরি মাইর গে। তখন আমার চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে আসলে আমরা তাকে উদ্ধার করে বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা হলে কর্তব্যরত ডাক্তারা তার অবস্হা আশংকা জনক হওয়ায় তাকে  চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে পরবর্তীতে  রাত ২ টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে তার  মৃত্যু হয়।

বাঁশখালী হাসপাতালের কর্তব্যরত আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ তৌহিদুল আনোয়ার বলেন,দিদারের শরীরের বাম পার্শ্বে বুকের নিচে ছুরির অাঘাত করে ধারনা করা হচ্ছে তার শরীরে পিছন থেকে আর্ক্রমন করা হয়েছে।ছুরির আঘাতে বেশী রক্ত অতিবাহিত হওয়ায় আমরা থাকে চমেকে রেফার্ড করি সেখানে তার মৃত্যু হয়েছে।

বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন বলেন, কি কারণে খুনের ঘটনা ঘটেছে আমি এখনো জানতে পারিনি। তবে মনে হয় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পরিকল্পিতভাবে এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে। খুনিদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

ফোনে ডেকে নিয়ে বাঁশখালীতে পৌরসভা ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি কে হত্যা

মতামত.........