,

প্রধানমন্ত্রীর কাছে ঠাকুরগাঁওয়ের বাবা হারানো শিশু মাওয়া আক্তারের আকুতি

কামরুল হাসান ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি ;

ঠাকুরগাঁওয়ের আলোচিত সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা আব্দুল মান্নান হত্যাকান্ডের অভিযুক্তদের আইন শৃঙ্খলা বাহিনী গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। অভিযুক্ত মুলহোতারা বর্তমানে জেল হাজতে। কিন্তু হত্যাকান্ডের সঠিক বিচার নিয়ে সংশয়ে রয়েছে আব্দুল মান্নানের পরিবার। সম্প্রতি আব্দুল মান্নানের শিশু কন্যা তৃতীয় শ্রেণীতে পড়ুয়া মাওয়া আক্তার বাবা’র হত্যাকারীদের সুষ্ঠ বিচারের দাবিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র কাছে একটি লিখিত আবেদন করেছেন। যা ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্য ফেসবুকে ভাইরাল পড়েছে।

নিম্মে ওই শিশু লিখিত আবেদনটি তুলে ধরা হলো:
গণভবন, তারিখ: ২৯-০৮-২০১৭
মাননীয় সভাপতি
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার।
বিষয়: ন্যায় বিচারের দাবি প্রসঙ্গে।
মহাত্নন,
বিনীত নিবেদন এই আমি ঠাকুরগাঁও জেলার ইসলাম নগর গ্রামের মৃত আব্দুল মান্নানের কন্যা মোছা: মাওয়া আক্তার। আমার পরিবারের সদস্য সংখ্যা ৪ জন । আমার দুই বোন এবং মা-বাবা । আমি তৃতীয় শ্রেণীতে পড়ি। আমার বোনের বয়স ৪ বছর । আমার মা গৃহিনী । আমাদের পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী ব্যক্তি আমার বাবা। আমার বাবাকে গত ১১ জুলাই/২০১৭ইং রাতে সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে নৃশংস ভাবে খুন করে । এখন আমরা খুব কষ্টে জীপন যাপন করতেছি। আমাদের কোন প্রকার অর্থ না থাকায় কোর্ঠে আসামীদের বিপক্ষে উকিল দ্বার করাতে পারি নাই।
আপনার প্রতি আকুল আবেদন আমার পরিবারের উপর সুদৃষ্টি কামনার জন্য। আমরা সকলে হত্যাকারীদের ফাঁসি চায়।
অতত্রব, বিনীত প্রার্থনা এই যে, উপরোক্ত বিষয়টি সুদৃষ্টি পরলক্ষিত করে আসামীদের ফাঁসির রায় কার্যকরণে মহাত্ননের আজ্ঞা মর্জি হয়।
নিবেদক
মৃত সেচ্ছাসেবক লীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদকের মেয়ে
মোছা: মাওয়া আক্তার।
প্রধানমন্ত্রীর কাছে বাবা’র হত্যাকারীদের সুষ্ঠ বিচার প্রার্থনাকারী শিশু কন্যার মাওয়ার আক্তারের লিখিত আবেদন ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ার পড়ে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতেদের সবোচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়েছেন অনেকেই ফেসবুকে কমেন্টে মন্তব্য করেছেন।
প্রসঙ্গত, ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সজীব দত্তের সঙ্গে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল মান্নানের বিরোধ ছিল। এর জের ধরে গত ১১ জুলাই দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে শহরের মুন্সিরহাট এলাকায় আব্দুল মান্নানকে ছুরিকাঘাত করেন সজীব দত্ত। তাকে উদ্ধার করে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান।
এ ঘটনায় মান্নানের বড় ভাই আবু আলী বাদী হয়ে সদর উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সজিব দত্ত ও পৌরসভার ১০ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শান্ত’কে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। বর্তমানে তারা দু’জনেই জেল হাজতে রয়েছেন।

মতামত.........