imagesগোলাম রব্বানী (শিপন) (বগুড়া) মহাস্থান প্রতিনিধি:

বগুড়ার শিবগঞ্জে সামান্য পায়ে হাঁটা রাস্তা নিয়ে বিরোধের জের ধরে ছুরিকাঘাতে বাদল হোসেন (২৮) নামের এক যুবক খুন হয়েছেন। এঘটনায় আরো দুইজন ছুরিকাহত হয়েছে। পুলিশ ঘটনার সঙ্গে জড়িৎ অভিযোগে নিহতের মামাতো ভাই রায়হান (৩০) ও তার স্ত্রী ময়না খাতুন(২৫) কে গ্রেফতার করেছে।
বুধবার রাতে শিবগঞ্জ পৌরসভার পুর্ব জাহাঙ্গীরাবাদ (কাজিটোলা) মহল্লায় এই খুনের ঘটনা ঘটে। নিহত বাদল হোসেন (২৮) ওই গ্রামের মৃত আসেদ আলীর পুত্র।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বাড়ির সীমানার কাছে পায়ে হাঁটা রাস্তা নিয়ে বাদলের সঙ্গে তার মামাতো ভাই রায়হান আলীর দীর্ঘ দিন বিরোধ চলছিল। এরই জের ধরে বুধবার রাত ১০টার দিকে অাবারোও দু’জনে বিরোধে জড়িয়ে পড়ে। এসময় রায়হান অালী ক্ষিপ্ত হয়ে বাদলকে উপুর্যপুরী ছুরিকাঘাত করে। এসময় বাদলকে উদ্ধার করতে গেলে খুনী রায়হানের ছুরিকাঘাতে বাদলের ছোট ভাই বুলবুল (২০) ও চাচা বেলাল (২৫) আহত হয়। পরে প্রতিবেশীরা তাদের ৩ জনকে উদ্ধার করে দ্রুত শিবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে দেয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ১১টায় বাদল মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য গুরুতর আহত অপর দুইজনকে রাতেই বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। এঘটনার পরপরই পুলিশ রাতেই রায়হান (৩০) ও তার স্ত্রী ময়না খাতুন(২৫) কে গ্রেফতার করে।
শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহসান হাবিব জানান, তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে রায়হান বাদলকে ছুরিরকাঘাতে খুন করেছে বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের পর খুনির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্তা গ্রহণ করা হবে।
ছবি আছে নাকি ভাই?
পায়ে হাঁটা রাস্তার জন্য শিবগঞ্জে মামাতো ভাই এর হাতে খুন হলেন বাদল

মতামত.........