চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:

বন্দর নগরী চট্টগ্রামের চান্দগাঁও থানার এক কিলোমিটার এলাকার কে.বি আমান আলী সড়কে রোববার (১৯ নভেম্বর) দুপুরে কলেজ ছাত্রীকে শরীরের তিন জায়গায় ছুরিকাঘাত করে পালিয়েছে এক তরুণ। বর্তমানে গুরুতর আহত এই তরুণী চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন।

আহত ছাত্রীর ভাই আসিফ আল হাসান দাবি করেছেন, ধর্ষণ করতে ব্যর্থ হয়ে তার বোনকে খুন করতে চেয়েছিল কয়েকজন দুর্বৃত্ত।‘আমার বোন কথা বলতে পারছেন না। এখন সেন্সলেস অবস্থায় আছে। তবে এর আগে সে ইশারায় তাকে জোরজবরদস্তি করে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে। তাই আমরা ধারণা করছি ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে তার ওপর ছুরিকাঘাত করা হয়েছে।’

ঘটনার সময় তার বোন বাসা দেখতে গিয়েছিলেন বলেও জানান আসিফ আল হাসান।

তবে চান্দগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল বশর বলেন, ‘পূর্ব পরিচিত এক তরুণসহ ওই তরুণী ও তার বান্ধবী বাসা দেখতে বের হয়েছিলেন বলে জেনেছি। আমরা তরুণীর বান্ধবীর সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি জানিয়েছেন বাসা দেখার এক পর্যায়ে তরুণীর সঙ্গে তরুণের কথা কাটাকাটি হয়। এর এক পর্যায়ে কাটার দিয়ে তাকে তিন দফা আঘাত করে ওই তরুণ পালিয়ে যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘আহতের পর ওই তরুণী নিচে নেমে রাস্তায় হেঁটে কিছুদূর গিয়ে একটি দোকানের সামনে পড়ে যান। পরে স্থানীয়রা খবর দিলে পুলিশ উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।’অভিযুক্ত তরুণকে গ্রেফতারের চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানান ওসি।

চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির নায়েক মোহাম্মদ আমির বলেন, নগরীর একটি কলেজে স্নাতকোত্তর শ্রেণিতে পড়ুয়া এক ছাত্রীকে গুরুতর আহত অবস্থায় দুপুরের দিকে হাসপাতালে আনা হয়। তার পেটে বুকে ও চোখের পাশে ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাকে অপারেশন থিয়েটারে নেওয়া হয়েছে।’

পেটে ছুরিকাঘাতের ফলে তরুণীর নাড়িভুঁড়ির কিছু অংশও বের হয়ে গেছে বলে জানান আমির।

ধর্ষণ করতে ব্যর্থ : চট্টগ্রামে কলেজ ছাত্রীকে ছুরিকাঘাত, গলা-পেটে ও মুখে গুরুতর জখম

মতামত.........