,

জঙ্গিদের বাড়িভাড়া ও তথ্য গোপন,নর্থ সাউথ প্রোভিসি সহ ৪ জন ৮ দিনের রিমান্ডে

0-2-2-590x332সংবাদ সবসময় ডেস্ক :

গুলশানে হলি আর্টিসান বেকারি ও রেস্টুরেন্টে হামলাকারী জঙ্গিদের বাসা ভাড়া দেয়া এবং তথ্য গোপন করার অভিযোগের মামলায় নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রোভিসিসহ চারজনকে ৮ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তসরুজ্জামান ১০ দিনের রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে রোববার (১৭ জুলাই) ওই আদেশ দেন।

রিমান্ডপ্রাপ্তরা হলেন, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রোভিসি ও স্কুল অব হেলথ অ্যান্ড লাইফ সায়েন্সেস অনুষদের ডিন অধ্যাপক এসএম গিয়াস উদ্দিন আহসান, তার ফ্ল্যাটের তত্ত্বাবধায়ক মাহবুবুর রহমান, ওই অধ্যাপকের ভাগনে আলম চৌধুরী এবং পশ্চিম শেওড়া পাড়ার ৪৪১/৮ নম্বর বাসার মালিক নূরুল ইসলাম।

শনিবার (১৭ জুলাই) বিকেল ৫টার দিকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা থেকে প্রথম তিনজনকে এবং দিবাগত রাতে পশ্চিম শেওড়া পাড়ার ৪৪১/৮৮ নম্বর বাসায় অভিযান চালিয়ে বাড়ির মালিক নুরুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট।

মে মাসের মাঝামাঝি সময়ে জঙ্গিরা বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় ওই অধ্যাপকের একটি ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়েছিল বলে পুলিশ জানায়। গুলশানের আর্টিসান রেস্টুরেন্টে হামলার পর জঙ্গিদের সহযোগীরা দ্রুত ওই ফ্ল্যাট ত্যাগ করে। পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওই বাসা থেকে বালুভর্তি কার্টন, পোশাকসহ বিভিন্ন মালামাল জব্দ করে। এসব কার্টনে হামলায় ব্যবহৃত গ্রেনেড রাখা হয়েছিল বলে ধারণা করছে পুলিশ।

পুলিশ জানিয়েছে, বসুন্ধরার ফ্ল্যাটটি গিয়াস উদ্দিনের স্ত্রীর। ফ্ল্যাটটি মূলত দেখাশোনা করতেন তার ভাগনে আলম চৌধুরী। মে মাসের মাঝামাঝি সময়ে ফ্ল্যাটটি কয়েকজন ব্যাচেলরকে ভাড়া দেয়া হয়। কাদের ভাড়া দেয়া হয়েছিল সেটি আলম চৌধুরী ও মাহবুবুর রহমান জানতেন।

গোয়েন্দাসূত্র জানায়, জঙ্গিদের এক সহযোগী আলমের মাধ্যমে ওই ফ্ল্যাটটি ভাড়া নেয়। মাসিক ভাড়া নির্ধারিত হয় ২২ হাজার টাকা। তারা দুই মাসের অগ্রিম ভাড়া হিসেবে ৪০ হাজার টাকাও দেয়।
তত্ত্বাবধায়ক মাহবুবুর রহমান জিজ্ঞাসাবাদে গোয়েন্দাদের জানিয়েছেন, ভাড়া নেয়ার পর ওই ফ্ল্যাটে অনেক মানুষ যাতায়াত করত। গোয়েন্দাদের ধারণা, গুলশানে রেস্টুরেন্টে হামলাকারীরা ওই ফ্ল্যাটে অবস্থান করেছিল।

গত ১ জুলাই রাত পৌনে ৯টার দিকে গুলশানের হলি আর্টিসান রেস্টুরেন্টে হামলা চালায় জঙ্গিরা। সে সময় জঙ্গিরা ১৭ জন বিদেশিসহ ২০ জনকে হত্যা করে। তাদের বোমায় নিহত হন দুই পুলিশ কর্মকর্তা। ১২ ঘণ্টা পর জিম্মি উদ্ধার অভিযানে ওই রেস্টুরেন্টের শেফ সাইফুল চৌকিদারসহ ৫ জঙ্গি নিহত হয়।

গুলশান হামলায় অংশ নেয়া জঙ্গি নিবরাস ইসলাম নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র। আবার জিম্মি অবস্থায় জীবিত উদ্ধার হওয়া হাসনাত রেজাউল করিমও ওই বিশ্ববিদ্যালয়েরেই সাবেক শিক্ষক।

এ ছাড়াও কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে হামলার সময় পুলিশের গুলিতে নিহত আবিরও নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। ওই তিন কারণে জঙ্গি হামলার মদদদাতা হিসেবে সন্দেহের তীর যখন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের দিকে, ঠিক তখনই জানা গেল ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রোভিসির বাসায় ভাড়া থেকেই ৫ জঙ্গি হামলা চালায় গুলশানের হলি আর্টিসান রেস্টুরেন্টে।

মতামত.........