আবদুল আউয়াল জনি, সংবাদ সবসময়ঃ

আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-১৫ সাতকানিয়া-লোহাগাড়া আসনে একাধিক ব্যক্তি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশা করলেও সাতকানিয়া-লোহাগাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের দাবী দলের দুঃসময়ে বিভিন্ন সংকটকালে যারা নেতাকর্মীদের পাশে থাকা দলের জন্য নিবেদিত প্রাণ ও কর্মীবান্ধব ব্যক্তিকেই যেন নেতাকেই যেন এই আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেওয়া হয়।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাতকানিয়া-লোহাগাড়া আসনে কেমন প্রার্থী চান জানতে চাইলে সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক কুতুব উদ্দিন চৌধুরী সংবাদ সবসময়কে বলেন যেকোন সময়ের চেয়ে বর্তমানে সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগ অনেক বেশী সংগঠিত ও শক্তিশালী কিন্তু স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমরা জানমাল বাজী রেখে আসনটি জননেত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিলেও আশাহত হয়েছে দলের তৃনমূল নেতাকর্মীরা। স্থানীয় সাংসদের সাথে দলের তৃনমূল নেতাকর্মীদের অজানা দুরত্বের কারণেই সাংগঠনিক ভাবে শক্তিশালী হওয়ার পরেও ঝিমিয়ে পড়ছে তাদের কার্যক্রম। তাই দলের দুঃসময়ে বিভিন্ন সংকটকালে যারা নেতাকর্মীদের পাশে ছিলেন দলের জন্য নিবেদিত প্রাণ ও কর্মীবান্ধব ব্যক্তিকে চট্টগ্রাম-১৫ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন দেওয়া হলে প্রাণ ফিরে পাবে তৃনমূল, আসনটি জননেত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দেওয়ার জন্য তৃনমূল নেতাকর্মীরা সর্বোচ্চ ঝুকি নিয়ে মাঠে ঝাপিয়ে পড়বে বলে আমি মনেকরি।

লোহাগাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিন হীরু সংবাদ সবসময়কে বলেন কেন্দ্র থেকে যাকেই মনোনয়ন দেওয়া হবে তার পক্ষেই নৌকা প্রতিককে বিজয়ী করার জন্য আমরা কাজ করব, তবে তৃনমূল থেকে উঠে আসা কর্মীবান্ধব নেতাকে যদি মনোনয়ন দেওয়া হয় তাহলে দল শক্তিশালী হবে, কারণ কর্মীবান্ধব কাউকে মনোনয়ন না দিলে তারা নির্বাচিত হওয়ার পর স্থানীয় নেতাকর্মীর কোন খোজখবর রাখতে চাননা, স্থানীয় নেতাকর্মীদের জুজুর ভয় দেখিয়ে কোনঠাসা করে রাখেন, দলের ব্যানারে কোন উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনা করেননা, দলের তৃনমূলের নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে নিদ্দিষ্ট কিছু ব্যক্তিকে দিয়ে নিজস্ব ব্যানারে সকল কর্মকান্ড পরিচালনা করেন, সেটা দলের জন্য এবং তৃনমূলের নেতাকর্মীদের জন্য অপুরণীয় ক্ষতির কারণ হয়ে দাড়ায়, যতই সংগঠিত হোকনা কেন এসব কারণে দল পিছিয়ে পড়ে। দলের জন্য নিবেদিত প্রাণ ও কর্মীবান্ধব ব্যক্তিকে চট্টগ্রাম-১৫ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন দেওয়া হলে প্রাণ ফিরে পাবে তৃনমূল, আসনটি জননেত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দেওয়ার জন্য তৃনমূল নেতাকর্মীরা অতিতের মত সর্বোচ্চ ঝুকি নিয়ে মাঠে ঝাপিয়ে পড়বে বলে আমি মনেকরি।

লোহাগাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক রিদওয়ানুল হক সুজন সংবাদ সবসময়কে বলেন দীর্ঘসময় থেকে এই আসনে আওয়ামীলীগ বিজয়ী হতে না পারলেও বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ড. অধ্যাপক আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামউদ্দিন নদভী নৌকা প্রতিক নিয়ে বিজয়ী হলেও অজানা কারণে দলের সাথে সাংসদের দুরত্ব সৃষ্টি হওয়ার কারণে দলের স্থানীয় নেতাকর্মীরা বঞ্চিত ও নিগৃহীত হয়েছে, তাই একজন মাঠকর্মী হিসেবে আমাদের একমাত্র দাবী আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমন একজন ব্যক্তিকে নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন দেওয়া হোক যার সাথে দলের তৃনমূলের নেতাকর্মীর সাথে নিবিড় সম্পর্ক আছে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিনের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ২৮শে ফেব্রুয়ারীর তান্ডবের পরে তিনি আমাদের তৃনমূল নেতাকর্মীদের সাথে দলের সঙ্কটকালীন সময়ে ঢাল হয়ে ছিলেন, বর্তমানে তিনি কেন্দ্রীয় নেতা হলেও তৃনমূলের সকল নেতাকর্মীর খোজ খবর রাখেন, তাদের বিপদে ছুটে যান, এমন কাউকে দলের মনোনয়ন দিলে আমরা সাংগঠনিক ভাবে আরো শক্তিশালী হব।

সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ন-আহবায়ক নাছির উদ্দিন জয় সংবাদ সবসময়কে বলেন দীর্ঘদিন যাবৎ এই জনপদে যিনি কর্মীদের গড়ে তুলেছেন, কর্মীদের প্রিয় নেতা হিসেবে যিনি মাঠে আছেন এবং কাজ করছেন, তিনি হলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন। উনার নির্দেশনায় আমরা অতিতে সুসংগঠিত ছিলাম, এখনও আছি, এবং ভবিষ্যতেও থাকব, তাই আমিনুল ইসলাম আমিনকে নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন দেওয়া হলে তৃনমূল নেতাকর্মীরা অধিক আগ্রহ নিয়ে নৌকা প্রতিকের বিজয়ের জন্য জানমাল বাজী রেখে ঝাপিয়ে পড়বে বলে আমি মনেকরি।

বর্তমানে বিভিন্ন সংস্থার জরিপে এবং তৃনমূল নেতাকর্মীদের চাওয়ার ভিত্তিতে বিশ্লেষন করে দেখা যায় আগামী নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে আছেন তৃণমূল থেকে কেন্দ্রে স্থান করে নেওয়া বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মিডিয়া ব্যক্তিত্ব নামে পরিচিত বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন।

এছাড়াও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দাবি করছেন সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি বনফুল ও কিশোয়ান গ্রুপের চেয়ারম্যান এম,এ মোতালেব সি,আই,পি তিনিও সাতকানিয়া-লোহাগাড়া বাসীর বিভিন্ন সামাজিক ও অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়ে বিভিন্ন ধরনের সহযোগিতা ও সেবা প্রদান করে আসছেন। তিনিও আশাবাদী এবার জননেত্রী শেখ হাসিনা তাকে নমিনেশন দিবেন।

বর্তমান সংসদ সদস্য ড. অধ্যাপক আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামউদ্দিন নদভী এমপিও হাল ছাড়েননি, তিনিও আশাবাদী দ্বিতীয়বারের মত আ’লীগের মনোনয়ন বাগিয়ে নিতে।

এছাড়া কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাঈনুদ্দীন হাছান চৌধুরী, খ্যাতনামা শিল্পগ্রুপ নোমান গ্রুপের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর আবদুল্লাহ মুহাম্মদ জোবায়ের এর নামও আছে স্থানীয়দের আলোচনায়।

তবে সবকিছু ছাড়িয়ে দলের জন্য নিবেদিত প্রাণ ও কর্মীবান্ধব ব্যক্তিকেই চট্টগ্রাম-১৫ সাতকানিয়া-লোহাগাড়া আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন দেওয়া হোক এটাই প্রত্যাশা দলের সর্বস্থরের নেতাকর্মীদের।

কর্মীবান্ধব নেতার মনোনয়ন চান চট্টগ্রাম-১৫ আসনের আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা

মতামত.........