,

এজেন্সি ও ফেরত না আসা হজযাত্রীদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা

abbasওমরায় মানব পাচারের ব্যবস্থা নেওয়ার পর এবার হজ এজেন্সি ও হজে গিয়ে ফেরত না আসা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে সরকার। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশের পর ধর্ম মন্ত্রণালয় এ ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেছে।

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে ফেরত না আসা হজযাত্রীদের তালিকা প্রস্তুত করে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে দ্রুত শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। এ নির্দেশের পর ধর্ম মন্ত্রণালয় বেশ কিছু এজেন্সি এবং ফেরত না আসা দেড় শতাধিক ব্যক্তির তালিকা ধরে যাচাই করছে।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মো. আব্দুল জলিল বাংলানিউজকে বলেন, ওমরা এজেন্সির বিরুদ্ধে মন্ত্রণালয় থেকে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এবার গত মৌসুমে যারা হজে গিয়ে ফেরত আসেননি সেসব হজযাত্রী এবং তাদের যেসব এজেন্সি পাঠিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। প্রয়োজনে আইনগত ব্যবস্থাও নেওয়া হবে। ভবিষ্যতেও এ ব্যবস্থা অব্যাহত থাকবে।

ধর্ম মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের নির্দেশের পর পুলিশ ভেরিফিকেশনের সময় হাজযাত্রীদের বয়স যাচাই এবং রোহিঙ্গারা যাতে হজে যেতে না পারে সে বিষয়টিও এ বছর নিশ্চিত করার ব্যবস্থা নিচ্ছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

পাশাপাশি গত ৫ বছরে যারা হজে গেছেন তাদের বয়স, পেশা ইত্যাদি বিষয়ে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় একটি প্রতিবেদন তৈরি করবে। প্রতিবেদন অনুযায়ী ফেরত না আসা ব্যক্তি এবং যেসব এজেন্সি পাঠিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ও প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এছাড়া মন্ত্রণালয় হাজিদের স্বাস্থ্য পরীক্ষায় ডাক্তার বা ফিটনেস সার্টিফিকেট প্রদানকারি ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে মনিটরিং করবে মন্ত্রণালয়। যদি স্বাস্থ্যগত কারণে হজে যেতে অনুপযুক্ত ব্যক্তিকে ফিটনেস সনদ দেওয়া হয় সে ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান এবং চিকিৎসকের বিরুদ্ধেও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশ এবং মন্ত্রণালয়ের পদক্ষেপ নিয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব আব্দুল জলিল আরো বলেন, সৌদি আরবে থেকে ফেরত না আসা দেড়শ’ জনের বেশি হজযাত্রীর একটি তালিকা পাঠিয়েছেন হজ কাউন্সিলর। ওই তালিকায় যারা রয়েছেন তাদের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ইমিগ্রেশন থেকে যাচাই-বাছাই হয়নি এখও। যাচাই-বাছাই শেষ হলে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের তদন্তের ভিত্তিতে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সচিব জানান, এর আগে ওমরা এজেন্সিগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এবার হজ এজেন্সি এবং তাদের পাঠানো হজযাত্রী- যারা ফেরত আসেননি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গত বছর ওমরা মৌসুমে হজ এজেন্সিস অ্যাসোয়িশেন অব বাংলাদেশ (হাব) নেতাদের এজেন্সিসহ বিভিন্ন এজেন্সি মানব পাচারের দায়ে অভিযুক্ত হয়। এসব এজেন্সির বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়। তবে আইনগত ব্যবস্থা নেয়নি মন্ত্রণালয়।

মতামত.........