13600246_1069913133091300_1743845965410841791_nআবদুল আউয়াল জনি, সংবাদ সবসময় :

আজ ৬ই জুলাই আনন্দ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে প্রচলিত নিয়মের বাইরে গিয়ে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে দেশের অন্যান্য স্থানের মতো দক্ষিণ চট্টগ্রামের প্রায় ৩০ গ্রামে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন করছেন প্রায় দু’হাজার পরিবার। একইভাবে তারা বাংলাদেশের একদিন আগে থেকে রোজা পালনও শুরু করেছিলেন। আজ ঈদ পালনকারীরা হলেন সিলসিলিয়া আলীয়া জাহাঁগীরিয়া তরিকার পীর সাতকানিয়া উপজেলার মির্জারখীল দরবার শরিফ ও চন্দনাইশ উপজেলার শাহছুফি মমতাজিয়া দরবার শরিফের অনুসারী।

দক্ষিণ চট্টগ্রামের যেসব গ্রামে ঈদ উদযাপন হচ্ছে : সাতকানিয়া উপজেলার মির্জারখীল, চরতি, সুইপুরা, ঘাটিয়াডাঙ্গা, ধর্মপুর ও কেরানিহাট, পটিয়া উপজেলার কালারপোল, হাইদগাঁও, মল্লপাড়া ও বাহুলী, চন্দনাইশের কাঞ্চননগর, গাছবাড়িয়া, হারালা, বাইনজুড়ী, কানাইমাদারি ও ঢেমশা, আনোয়ারার তৈলারদ্বীপ, বুররুমছড়া, বারখাইন, সরকারহাট, গহিরা ও বারশত, বোয়ালখালী উপজেলার চরণদ্বীপ, খরণদ্বীপ, পূর্ব গোমদণ্ডী ও পশ্চিম কধুরখীল, বাঁশখালী উপজেলার কালীপুর, চাম্বল, শেখেরখীল, পূঁইয়াছড়া, ডোমার ও লোহাগাড়ার কলাউজান, পুটিবিলা।

সাতকানিয়া উপজেলার মির্জারখীল দরবার শরিফে সিলসিলিয়া আলীয়া জাহাঁগীরিয়া দরবার শরিফের পীর হয়রত মৌলানা মোহাম্মদ আরেফুল হাইয়ের বড় ছেলে মুফতি মৌলানা মোহাম্মদ মকছুদুর রহমান ঈদের নামাজে ইমামতি করেন।

উল্লেখ্য প্রায় দুশ’ বছর আগে মৌলানা মোহাম্মদ মুখলেছুর রহমান নামে একজন গদিনশীন পীর পৃথিবীর যে কোনো দেশে চাঁদ দেখা গেলেই রোজা, ঈদ এবং কোরবানি পালনের নিয়ম প্রবর্তন করেন। এরপর থেকে এ নিয়ম পালন করছেন তার অনুসারীরা।

আজ ঈদ উদযাপন চলছে চট্টগ্রামের ৩০ গ্রামে

মতামত.........